ক্যাটাগরি: উপকূলীয় মাছ | মাছ | মাৎস্য সম্পদ | সামুদ্রিক মাছ

বাংলাদেশের মাছ: চৌখ্যা, Big Eye Ilisha, Ilisha megaloptera

শ্রেণীতাত্ত্বিক অবস্থান (Systematic position)
পর্ব: Chordata
শ্রেণী: Actinopterygii (Ray-finned fishes)
বর্গ: Clupeiformes (Herrings)
উপবর্গ: Clupeoidei
পরিবার: Pristigasteridae (Longfin herrings)
উপপরিবার: Pelloninae
গণ: Ilisha
প্রজাতি: I. megaloptera

সমনাম (Synonyms)
Clupanodon motius Hamilton, 1822
Clupea megalopterus Swainson, 1839
Clupea parva Swainson, 1839
Ilisha dussumieri (Valenciennes, 1847)
Ilisha motius (Hamilton, 1822)
Pellona dussumieri Valenciennes, 1847
Pellona megaloptera (Swainson, 1839)
Pellona russellii Bleeker, 1852
Platygaster macropthalma Swainson, 1839

সাধারণ নাম (Common name)
বাংলা: চৌখ্যা, পেটি চৌখ্যা, চোখা (Naser, 2011)
ভারত: পশ্চিমবঙ্গে ফ্যানসা (Phansa) নামে পরিচিত (Talwar and Jhingran, 1991)
English: Bigeye ilisha, Bigeye herring

বিস্তৃতি (Distribution)
ভারত মহাসাগরের মুম্বাই (পূর্ববর্তী বোম্বে) থেকে বঙ্গোপসাগর এবং থাইল্যান্ডের জাভা সাগরে এদের দেখা মেলে (Talwar and Jhingran, 1991)।

চৌখ্যা, Big Eye Ilisha, Ilisha megaloptera মাছের ভৌগলিক বিস্তার

চৌখ্যা, Big Eye Ilisha, Ilisha megaloptera মাছের ভৌগলিক বিস্তার (Aquamaps, 2014)

সংরক্ষণ অবস্থা (Conservation status)
আইইউসিএন বাংলাদেশের (IUCN Bangladesh, 2000) তথ্য অনুসারে বাংলাদেশে এই মাছটি এখনও হুমকিগ্রস্ত প্রজাতির তালিকাভুক্ত নয়।

বাহ্যিক দৈহিক গঠন (Morphology) :
পার্শ্বীয় ভাবে অত্যন্ত চাপা দেহ ফুজিফর্ম (fusiform) অর্থাৎ দেহের মধ্যভাগ প্রশস্ত যা ক্রমশ সরু হয়ে অগ্র ও পশ্চাদ প্রান্তে শেষ হয়েছে। পৃষ্ঠীয় প্রান্ত প্রায় সোজা এবং অঙ্কীয় প্রান্ত অত্যন্ত অবতল। উপরের চোয়ালে এবং মুখ টানটান ভাবে বন্ধ থাকার সময় নিচের চোয়ালেও স্পষ্ট খাঁজ দেখতে পাওয়া যায়। উপরের চোয়াল নীচের দিকে চোখের মাঝ বরাবর বিস্তৃত। উপরের চোয়ালের চেয়ে নীচের চোয়াল দৈর্ঘ্যে বড়। এর চোখজোড়া তুলনামূলক ভাবে বেশ বড়। উভয় চোয়াল , তালু (palate) ও জিহ্বাতে দাঁত দেখতে পাওয়া যায়।

পৃষ্ঠ পাখনা পুচ্ছ পাখনার ভিত্তি ও তুণ্ডের মধ্যবর্তী স্থানের চেয়ে সামান্য অগ্রে উৎপত্তি লাভ করেছে। ক্ষুদ্রাকৃতির শ্রোণী পাখনা চোখের ব্যাসের চেয়ে সামান্য বড়। পুচ্ছ পাখনা দ্বিখণ্ডিত এবং উপরের খণ্ডের চেয়ে নিচের খণ্ডটি লম্বায় বড়। পৃষ্ঠ পাখনার পশ্চাদভাগ বরাবর অঙ্কীয় পাশে পায়ু পাখনা শুরু হয়ে থাকে। আঁইশে উলম্ব ভাবে অবস্থিত ডোরা দাগ উপস্থিত যা সম্পূর্ণ আঁইশ জুড়ে অবস্থান করে বা আঁইশের কেন্দ্র অতিক্রম করে । হেমাল কাটার (haemal) উভয় পাশে নলাকার বায়ুথলি (Swim bladder) উপস্থিত যা পেছনের দিকে ডানপাশে পুচ্ছ পাখনার ভিত্তি পর্যন্ত বিস্তৃত। Rahman (1989 and 2005) অনুসারে মাথার দৈর্ঘ্য আদর্শ দৈর্ঘ্যের ৪-৪.৪ গুণ ও মোট দৈর্ঘ্যের ৫-৫.৪ গুণ, দেহ উচ্চতা আদর্শ দৈর্ঘ্যের ৩.২-৩.৫ গুণ ও মোট দৈর্ঘ্যের ২.৫-২.৭ গুণ।

প্রথম ফুলকা খিলানের নিচের অংশে Rahman (1989 and 2005) অনুসারে ২৪-২৬ টি এবং Talwar and Jhingran (1991) অনুসারে ২১-২৫ টি ফুলকা-দণ্ডের (gill raker) উপস্থিতি লক্ষ্য করা যায়। পার্শ্বরেখা বরাবর ৪৫-৪৭ টি আঁইশ বিদ্যমান। পৃষ্ঠ পাখনার অগ্রভাগে আঁইশের ১৬টি সারি দেখতে পাওয়া যায়। শ্রোণী পাখনার অগ্রভাগে ১৬-১৮ সারি এবং পশ্চাদভাগে ৮-৯ সারি আঁইশ উপস্থিত। (Rahman,1989 and 2005)। Fishbase (2014) অনুসারে এদের উদরে অঙ্কীয় প্রান্তে ৩০-৩৪টি স্কিউট (scute) বর্তমান।

শরীরে মুক্তার মত রূপালি আভা দেখা যায়। পৃষ্ঠ প্রান্তের বর্ণ গাঢ় এবং পার্শ্বদেশের উপরিভাগ হালকা বাদামি। এদের শরীরের কোন অংশ থেকে আঁইশ তুলে ফললে উজ্জ্বল বলয় বা রেখা লক্ষ্য করা যায়। কমলা বর্ণের পৃষ্ঠ পাখনা ও পুচ্ছ পাখনার প্রান্ত গাঢ়। বক্ষ পাখনার অগ্রভাগের প্রথম ৮-৯টি পাখনা-রশ্মির শীর্ষভাগে গাঢ় কাল দাগ দেখা যায়। অবশিষ্ট পাখনা-রশ্মি বর্ণহীন। পায়ু পাখনার প্রান্তভাগ কাল। পুচ্ছ পাখনায় ক্ষুদ্রাতিক্ষুদ্র গাঢ় কালো বর্ণ দেখতে পাওয়া যায়। আঁইশ ও পাখনায় ক্ষুদ্রাতিক্ষুদ্র বিন্দু লক্ষ্য করা যায়।

পাখনা সূত্র (Fin formula)
D. 2-3/12-14; P1. 13-15; P2. 7; A. 2-3/36-39 (Rahman,1989 and 2005; Siddique et al., 2007)
D. iii 14-15; A ii 46-52; P I 15-17; V I 6 (Talwar and Jhingran, 1991).

সর্বোচ্চ দৈর্ঘ্য (Maximum length)
Talwar and Jhingran (1991) অনুসারে ২৭.৫ সেমি এবং Huda et al. (2003) অনুসারে ২৮ সেমি পর্যন্ত হয়ে থাকে।

আবাস্থল (Habitat)
উপকূলবর্তী এলাকার এই প্রজাতি জোয়ার-ভাটা চলে এমন স্থানে পাওয়া যায় (Siddique et al., 2007)। মেঘনা, পদ্মা ও এর শাখা নদী সমূহে বর্ষা মৌসুমে প্রচুর পরিমাণে পাওয়া যায় তবে অন্যান্য সময়ে তেমন একটা পাওয়া যায় না। (Rahman,1989 and 2005)। সুন্দরবন ও এর আশপাশে এই মাছের প্রাচুর্যতা লক্ষ্য করা যায় (Huda et al., 2003)। এটি লবণাক্ত, মিঠাপানি, নদীর মোহনায় ০-৫০ মিটার গভীর পর্যন্ত বিচরণ করতে সক্ষম (Fishbase, 2014)।

খাদ্য এবং খাদ্যাভ্যাস (Food and feeding habit)
এরা মাংসাশী মাছ। প্রধানত মাছ, ক্রাশটেশিয়ান্স (crustaceans), অ্যাম্ফিপডস (amphipods) ইত্যাদি খেয়ে থাকে। কখনও কখনও পলিকিটস (polychaetes), টিউনিকেটস (tunicates), শৈবাল (algae), ডায়াটমস (diatoms) ইত্যাদিও খাবার হিসেবে গ্রহণ করে থাকে।
এছাড়াও এরা চিংড়ি, কপিপোড ইত্যাদিও খেয়ে জীবন ধারণ করে (Ahmed and Al-Mukhtar 1983, Younis, 2000 এবং Abdullah 2000)।

বস্তুতান্ত্রিক ভূমিকা (Ecological role):
জলাশয়ের ময়লা আবর্জনা ইত্যাদি খেয়ে পানির দূষণ নিয়ন্ত্রণে বিশেষ ভূমিকা পালন করে থাকে (Siddique et al., 2007)।

প্রজনন (Breeding)
এপ্রিল হতে জুলাই পর্যন্ত এ প্রজাতির মাছ প্রজননে অংশগ্রহণ করে থাকে। সাধারণত বেলাভূমির কাছাকাছি অগভীর অঞ্চলে এরা প্রজনন করে ও বিপুল সংখ্যায় ডিম ছাড়ে।

আহরণ ও উৎপাদন (Harvesting and production)
ফাঁস জালের (gillnet) মাধ্যমে ধরা হয়ে থাকে।

অর্থনৈতিক গুরুত্ব (Economic importance)
মাছ আহরণের পর পরই বাজারজাত করা সম্ভব না হলে দ্রুত পচন ধরে । পচন ধরলে বাজার দর পাওয়া যায় না বিধায় এটি অর্থনৈতিকভাবে কম গুরুত্বপূর্ণ।

 

তথ্য সূত্র (References)

  • Abdulla, J.N.(2000).The biology of Ilisha megaloptera in Iraqi marine waters. MSc. Thesis (In Arabic). Basrah Univ. 75p
  • Ahmed, H.A. and Al-Mukhtar, M.A. (1983). Some studies on the food of Ilisha elongata and Otolithes argenteus in the Arab Gulf. Marina Masopotamica: 25-33
  • Aquamaps (2014) Computer Generated Native Distribution Map for Ilisha megaloptera (Bigeye ilisha) (modelled future range map based on IPCC A2 emissions scenario). www.aquamaps.org, version of Aug. 2013. Web. Accessed 12 Sep. 2014.
  • Bleeker P (1852) Bijdrage tot de kennis der ichthyologische fauna van Singapore. Natuurkundig Tijdschrift voor Nederlandsch Indië 3:51-86.
  • Cuvier G and Valenciennes A (1847) Histoire naturelle des poissons. Tome dix-neuvième. Suite du livre dix-neuvième. Brochets ou Lucioïdes. Livre vingtième. De quelques familles de Malacoptérygiens, intermédiaires entre les Brochets et les Clupes. Histoire naturelle des poissons. 19: i-xix + 1-544 + 6 pp., Pls. 554-590.
  • Fishbase (2014). Species summary: Ilisha megaloptera (Swainson, 1839), Bigeye ilisha. Retrieve on 12 September 2014 and from http://www.fishbase.org/summary/Ilisha-megaloptera.html
  • Hamilton F (1822) An account of the fishes found in the river Ganges and its branches. Edinburgh & London. An account of the fishes found in the river Ganges and its branches.: i-vii + 1-405, Pls. 1-39.
  • Huda MS, Haque ME, Babul AS and Shil NC (ed.) (2003) Field guide to finfishes of Sundarban, Aquatic resources division, Sundarban, Boyra, Khulna, Bangladesh, p. 65.
  • IUCN Bangladesh (2000) Red book of threatened fishes of Bangladesh, IUCN- The world conservation union. xii+116 pp.
  • Naser SMA (2011) Fish Profile: Big Eye Ilisha, Ilisha megaloptera (Swainson, 1839). Retrieve on 12 September 2014 and from http://en.bdfish.org/2011/08/bigeye-ilisha-ilisha-megaloptera/
  • Rahman AKA (1989) Freshwater Fishes of Bangladesh, 1st edition, Zoological Society of Bangladesh, Department of Zoology, University of Dhaka, Dhaka-1000, pp. 253-254.
  • Rahman AKA (2005) Freshwater Fishes of Bangladesh, 2nd edition, Zoological Society of Bangladesh, Department of Zoology, University of Dhaka, Dhaka-1000, pp. 277 -278.
  • Siddiqui KU, Islam MA, Kabir SMH, Ahmad ATA, Rahman AKA, Haque EU, Ahmed ZU, Begum ZNT, Hasan MA, Khondker M and Rahman MM (eds) (2007) Encyclopedia of Flora and Fauna of Bangladesh, Vol. 23. Freshwter Fishes. Asiatic Society of Bangladesh, Dhaka. p. 17.
  • Swainson W (1839) The natural history and classification of fishes, amphibians, & reptiles, or monocardian animals. Spottiswoode & Co., London. Nat. Hist. & Class. i-vi + 1-448.
  • Talwar PK and Jhingran AG (1991) Inland Fishes of India and Adjacent Countries,Vol. 1, Oxford & IBH Publishing Co. Pvt. Ltd. New Delhi-Calcutta, pp. 119-120.
  • Younis, K.H. (2000) The biology of Ilisha megalopetra in Shatt Al-Arab estuary N/W Arabian Gulf. Marina Mesopotamica 15 (1): 169-181.

 

পুনশ্চ:

  • মাছটির ছবি আমাদের সংগ্রহে নেই। আপনার সংগ্রহে থাকলে আমাদের পাঠকদের সাথে শেয়ার করতে ইমেইল করুন submit@bdfsh.org এই ঠিকানায়।
  • Google এ মাছটির ছবি দেখতে এখানে ক্লিক করুন।

Visitors' Opinion

লেখক

M.S In Fisheries Technology and B.Sc. Fisheries (Honours) from BAU. Now working as Research Assistant, WorldFish-Bangladesh and South Asia, Dhaka, Bangladesh. Contact: 01717063142, nayeem_officexp@yahoo.com

Leave a Reply