ক্যাটাগরি: বিদেশী মাছ | মাছ | মাৎস্য সম্পদ

বাংলাদেশের বিদেশী মাছ: ব্ল্যাক গোস্ট নাইফ ফিশ, Black Ghost Knife Fish, Apteronotus albifrons

ব্ল্যাক গোস্ট নাইফ ফিশ, Black Ghost Knife Fish, Apteronotus albifrons

ব্ল্যাক গোস্ট নাইফ ফিশ, Black Ghost Knife Fish, Apteronotus albifrons

দক্ষিণ আমেরিকার আমাজন নদী ও তৎসংলগ্ন জলাশয়ের মাছ ব্ল্যাক গোস্ট নাইফ ফিশ থাইল্যান্ড থেকে ২০০৯ সালে সর্বপ্রথম আমাদের দেশে নিয়ে আসা হয়। বাংলাদেশে বিদেশী দামী বাহারি মাছের মধ্যে এই মাছ অন্যতম যা প্রধানত ঢাকা ও খুলনার বাহারি মাছের দোকানে পাওয়া যায় (Galib and Mohsin, 2011)।

শ্রেণীতাত্ত্বিক অবস্থান (Systematic position):
পর্ব: Chordata (chordates)
শ্রেণী: Actinopterygii (Ray-finned fishes)
বর্গ: Gymnotiformes (Knifefishes)
পরিবার: Apteronotidae (Ghost knifefishes)
গণ: Apteronotus
প্রজাতি: Apteronotus albifrons

নামতত্ত্ব (Etymology)
গ্রিক শব্দ apteros অর্থাৎ পাখা (মাছের ক্ষেত্রে পাখনা) বিহীন (without wings (in this cases, fins)) এবং গ্রিক শব্দ noton অর্থাৎ পৃষ্ঠদেশ (back) থেকে Apteronotus নামটি এসেছে (Fishbase, 2014)।

সমনাম (Synonyms)
Apteronotus passan Lacepède, 1800
Gymnotus albifrons Linnaeus, 1766
Sternarchus albifrons (Linnaeus, 1766)
Sternarchus lacepedii Castelnau, 1855
Sternarchus maximilliani Castelnau, 1855.

সাধারণ নাম (Common name)
বাংলা: ব্ল্যাক গোস্ট নাইফ ফিশ, কালো ভূত ছুরি মাছ
English: Black Ghost Knife Fish

বিস্তৃতি (Distribution)
দক্ষিণ আমেরিকার আমাজন নদী ও তৎসংলগ্ন জলাশয়ে এদের দেখতে পাওয়া যায়। যেমন ভেনিজুয়েলা (Venezuela) থেকে প্যারাগুয়ে (Paraguay) এবং প্যারানা (Paraná) নদী। এছাড়াও পেরুর (Peru) আমাজন নদী ও তৎসংলগ্ন জলাশয়ে এরা বাস করে।
থাইল্যান্ড, বাংলাদেশ ইত্যাদি দেশের বাহারি মাছের ফার্ম ও দোকানে এদের দেখা মেলে।

দৈহিক গঠন (Morphology)
লম্বা দেহ পার্শ্বীয়ভাবে চাপা। বক্ষ পাখনার ভিত্তি থেকে শুরু করে পুচ্ছ পাখনা পর্যন্ত বিস্তৃত পায়ু পাখনা এই মাছে অন্যতম বৈশিষ্ট্য। ক্ষুদ্রাকার পুচ্ছ পাখনার শেষ প্রান্ত গোলাকার। ছোট আকারে পৃষ্ঠ পাখনার পাখনা রশ্মি সূত্রাকার। দেহ ও পাখনার বর্ণ কালো। লেজের ভিত্তির নিকটে আড়াআড়িভাবে অবস্থিত সাদা বর্ণের দুটি প্রশস্ত ডোরাকাটা দাগ দেখতে পাওয়া যায়। মাথার উপরে লম্বালম্বি ভাবে সাদা বর্ণের দাগ উপস্থিত যা কখনো কখনো পৃষ্ঠদেশের মাঝামাঝি পর্যন্ত বিস্তৃত।

সর্বোচ্চ দৈর্ঘ্য (Maximum length)
বাংলাদেশে নথিবদ্ধ সর্বোচ্চ দৈর্ঘ্য ১৮ সেমি (Galib, 2010)। তবে পৃথিবীতে সর্বোচ্চ ৪৯ সেমি দৈর্ঘ্যের ব্ল্যাক গোস্ট নাইফ ফিশ রেকর্ড করা সম্ভব হয়েছে (Badman, 2009)। Fishbase (2014) অনুসারে এদের সর্বোচ্চ মোট দৈর্ঘ্য ৫০ সেমি।

স্বভাব ও আবাস্থল (Habit and Habitat)
ব্ল্যাক গোস্ট নাইফ ফিশ তলাবাসী মাছ। প্রায় শান্ত প্রকৃতির এই মাছ সহজেই এ্যাকুয়ারিয়ামের পরিবেশের সাথে মানিয়ে নেয়। এদের বিশেষ বৈশিষ্ট্য হচ্ছে এরা সামনে ও পেছনে সমান তালে সাঁতরাতে পারদর্শী।

খাদ্য এবং খাদ্যাভ্যাস (Food and feeding habit)
এরা সর্বভুক তবে প্রাণী জাতীয় খাবার এরা অধিক পছন্দ করে। প্রকৃতিতে এরা প্রধানত ক্ষুদ্রাকার শিকারি পতঙ্গের শূককীট খেয়ে থাকে। এ্যাকুয়ারিয়ামে এরা সকল প্রকারের প্যাকেটজাত খাবারই খেয়ে থাকে।

জীবনকাল ও প্রজনন (Lifecycle and Breeding)
Childs et al. 2014) অনুসারে এদের জীবনকাল ১৫ বছর।
এই মাছের প্রজনন সম্পর্কে খুব একটা জানা যায় না। এমনকি এদের স্ত্রী ও পুরুষ মাছও আলাদা করা সম্ভব হয়নি। ইন্দোনেশিয়ার এই মাছের কৃত্রিম প্রজনন করানো হয়ে থাকে যদিও কোন পদ্ধতিতে প্রজনন করানো হয়ে থাকে তা অজানা (Childs et al., 2014)।

উপযোগী পরিবেশ (Suitable Environment)
Fishbase (2014) অনুসারে প্রাকৃতিক পরিবেশ এদের অনুকূল তাপমাত্রা ২৩-২৮ °C, পিএইচ ৬-৮, হার্ডনেস ৫-১৯ dH ।
Badman (2014) অনুসারে এদের জন্য এ্যাকুয়ারিয়ামের পানির তাপমাত্রা ৭৩-৮২ ডিগ্রি ফা. বা ২৩-২৮ ডিগ্রি সে., হার্ডনেস (Hardness): ৫-১০ dH, পিএইচ ৬-৮ ।
Childs et al. 2014) অনুসারে এদের জন্য এ্যাকুয়ারিয়ামের পানি ধারণ ক্ষমতা সর্বনিম্ন ১০০ গ্যালন (প্রায় ৩৭৯ লিটার), তাপমাত্রা ৭৩-৮২ ডিগ্রি ফা. বা ২২.৮.১-২৭.৮ ডিগ্রি সে., হার্ডনেস (Hardness): ৫-১৯ dGH, পিএইচ ৬-৮ ।

রোগ (Diseases)
বাংলাদেশে এই মাছের রোগ সম্পর্কে কোন তথ্য পাওয়া যায় না।

অর্থনৈতিক গুরুত্ব (Economic importance)
খাবারের মাছ হিসেবে এই মাছের গুরুত্ব নেই। তবে এ্যাকুয়ারিয়ামে দামী বাহারি মাছ হিসেবে এর অবস্থান প্রথম সারিতে। বাহারি মৎস্য প্রেমীদের চাহিদা মেটাতে এই মাছের গুরুত্ব রয়েছে।
বাংলাদেশে এই মাছের প্রজনন করানো সম্ভব হলে দেশের চাহিদা মিটিয়ে উৎপাদিত পোনা বিদেশেও রপ্তানি করা সম্ভব।

বাজার মূল্য:
বাংলাদেশে ১,২০০-১,৫০০ টাকায় এক জোড়া ব্ল্যাক গোস্ট নাইফ ফিশ পাওয়া যায় (Galib and Mohsin, 2011)।

 

তথ্য সূত্র (References)

Visitors' Opinion

লেখক

প্রফেসর, ফিশারীজ বিভাগ, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়, রাজশাহী-৬২০৫, বাংলাদেশ। বিস্তারিত ...

Leave a Reply