ক্যাটাগরি: মাছ | মাৎস্য সম্পদ | স্বাদুপানির মাছ

বাংলাদেশের মাছ: বেতাঙ্গী, Hora loach, Botia dayi

বেতাঙ্গী, Hora loach, Botia dayi

বেতাঙ্গী, Hora loach, Botia dayi

শ্রেণীতাত্ত্বিক অবস্থান (Systematic position)
পর্ব: Chordata
শ্রেণী: Actinopterygii (Ray-finned fishes)
বর্গ: Cypriniformes (Carps)
পরিবার: Cobitidae (Loaches)
উপপরিবার: Botiinae
গণ: Botia
প্রজাতি: B. dayi

সমনাম (Synonyms)
Botia geto Day
Botia geto (Hamilton)
Botia geto (Non Hamilton)
Canthophrys flavicauda Swainson
Canthophrys zebra Swainson
Cobitis dario Hamilton
Cobitis geto Hamilton
Diacanthus flavicauda (Swainson)
Diacanthus zebra (Swainson)

সাধারণ নাম (Common name)
বাংলা: বেতাঙ্গী, বেতাঙ্গি, রাণি, রাণী, বউ, বৌ, বেটি, বেতি
English: Hora loach, Botya loach
India: Botya loach (Talwar and Jhingran, 1991)

বিস্তৃতি (Distribution)
এ প্রজাতির মাছ বাংলাদেশ, পাকিস্তান (সিন্ধু নদীর অববাহিকা) এবং ভারত (দার্জিলিং, আসামের হিমালয় ও ব্রহ্মপুত্র নদীর অববাহিকা) (Bhuiyan, 1964; Talwar and Jhingran, 1991)।

সংরক্ষণ অবস্থা (Conservation status)
বাংলাদেশে এর সংরক্ষণ অবস্থা Data deficient অর্থাৎ এই মাছের সংরক্ষণ অবস্থা বিষয়ে তথ্য ঘাটতি বা স্বল্পতা রয়েছে (IUCN Bangladesh, 2000)। Latifa (2009) অনুসারে এই মাছটি বিরল প্রজাতির অন্তর্ভুক্ত।

বাহ্যিক দৈহিক গঠন(Morphology)
লম্বা দেহ পার্শ্বীয়ভাবে চাপা। পৃষ্ঠদেশ ধনুকের ন্যায় বাঁকানো তবে অঙ্কীয়দেশ প্রায় সোজা। বড় মাথার অগ্রপ্রান্ত তীক্ষ্ণ। মুখ ছোট ও মাংসল। চোখ মাথার পেছনের অর্ধাংশে অবস্থিত। এদের চার জোড়া স্পর্শী থাকে যার মধ্যে দুই জোড়া চঞ্চুতে, ১ জোড়া উপরের চোয়ালে এবং অবশিষ্ট জোড়াটি নিচের চোয়ালে অবস্থিত। দেহ ক্ষুদ্রাকৃতির আঁইশ দ্বারা আবৃত থাকে যা সহজে দৃশ্যমান নয়। পার্শ্বরেখা উপস্থিত।
এর শরীর হলুদাভ থেকে বাদামী রঙের হয়ে থাকে। এর পার্শ্বদেশ ও উদরে বেশ কিছু অনিয়মিত এবং একটি অপরটির উপর দিয়ে আংশিকভাবে অতিক্রান্ত ডোরা দেখতে পাওয়া যায়। এর মাথার উপর বেশ কয়েকটি এবং লেজে তিনটি বাদামী ডোরা লক্ষ্য করা যায়।
পুচ্ছ পাখনা গভীরভাবে দ্বিধাভক্ত এবং উভয় খণ্ডের শেষ প্রান্ত তীক্ষ্ণ ও চোখা প্রকৃতির। পাখনাগুলো বর্ণিল ও ২-৩টি কাল বর্ণের রেখা বিশিষ্ট হয়ে থাকে।

পাখনা সূত্র (Fin formula)
D. 12 (3/9); P. 14; V. 8; A. 7 (2/5); C. 19 (Bhuiyan, 1964)
D. 12 (3/9); P­1. 14; P2. 8; A. 7 (2/5); C. 19 (Rahman, 1989)
D ii-iii 9; A ii 5; P ii 11-12; V i 7 (Talwar and Jhingran, 1991)
D. 13(3/10); P. 14; V. 8; A. 7 (2/5); C. 19 (Shafi and Quddus, 2001)

সর্বোচ্চ দৈর্ঘ্য (Maximum length)
Bhuiyan (1964) অনুসারে ১৫ সেমি, Talwar and Jhingran (1991) অনুসারে ১২ সেমি এবং Shafi and Quddus (2001) অনুসারে ১৮ সেমি হয়ে থাকে।

আবাস্থল (Habitat)
এটা স্বাদুপানির উষ্ণ জলের মাছ। সাধারণত খাল, বিল, হাওড়, বাঁওড়, প্লাবনভূমি ও নদী তে বসবাস করে। এই মাছ কর্দমাক্ত মাটির তলদেশে বসবাস করতে অধিক পছন্দ করে (Shafi and Quddus, 2001)।

খাদ্য এবং খাদ্যাভ্যাস (Food and feeding habit)
এরা জলাশয়ের তলদেশের কাছাকাছি থাকতে পছন্দ করে এবং বিভিন্ন তলাবাসী প্রাণী যেমন পতঙ্গ, কীট, শূককীট ইত্যাদি খেয়ে থাকে। এরা এমনকি গলিত উদ্ভিদ ও প্রাণীও খেয়ে থাকে।
একুরিয়ামে এরা প্যাকেটজাত খাবার, জীবন্ত ও হিমায়িত খাবর যেমন- ব্লাডওয়ার্ম (bloodworms) ও ব্রাইন চিংড়ি (brine shrimp) ইত্যাদি খাওয়ানো যেতে পারে।

প্রজনন (Breeding)
এ মাছের প্রজনন সম্পর্কিত পর্যাপ্ত তথ্য পাওয়া যায় না। এখনো বাণিজ্যিকভাবে এর প্রজনন করানো সম্ভব হয়নি।

আহরণ ও উৎপাদন (Harvesting and production)
বাংলাদেশে খাবারের মাছ হিসাবে অন্যান্য মাছের সাথে ধরা পড়ে কিন্তু একক মাছ হিসাবে এর উৎপাদন বিষয়ক তথ্য পাওয়া যায় না। বাংলাদেশের বিভিন্ন বাজারে হঠাৎ হঠাৎ চোখে পড়ে (Bhuiyan, 1964)।

অর্থনৈতিক গুরুত্ব (Economic importance)
ভারতে মৎস্যখাতে এর কোন গুরুত্ব নেই (Talwar and Jhingran, 1991)। বাংলাদেশে এই মাছ সুস্বাদু মাছ হিসেবে খ্যাত Bhuiyan (1964)। একুরিয়ামের বাহারি মাছ হিসেবে এর যথেষ্ট সম্ভাবনা রয়েছে।

পুনশ্চ:
Hamilton (1822), Rahman ( 1989 and 2005) এবং Latifa (2009) অনুসারে এই মাছটি Botia Dario মাছের একটি বর্ণ প্রকরণ (variety) কারণ উভয় মাছের গঠনগত বৈশিষ্ট্য একই কেবলমাত্র দেহের বর্ণায়নে (ফোঁটা ও ডোরা) পার্থক্য দেখতে পাওয়া যায়।

 

তথ্য সূত্র (References)

  • Bhuiyan AL. 1964. Fishes of Dacca, Asiat. Soc. Pakistan, Pub. 1, No. 13, Dacca, pp. 49-50.
  • Hamilton F. 1822. An account of the fishes found in the river Ganges and its branches. Edinburgh & London. An account of the fishes found in the river Ganges and its branches.: i-vii + 1-405, Pls. 1-39.
  • Hora SL. 1932. Notes on fishes in the Indian Museum. XIX. On a new loach of the genus Botia, with remarks on B. dario (Ham. Buch.). Records of the Indian Museum (Calcutta) v. 34 (pt 4): 571-573.
  • IUCN Bangladesh. 2000. Red book of threatened fishes of Bangladesh, IUCN- The world conservation union. xii+116 pp.
  • Latifa GA. 2009. Botia dayi. In: Ahmed ZU, Ahmed ATA, Kabir SMH, Ahmed M, Begum ZNT, Hasan MA and Khondker M (eds.), Encyclopedia of flora and fauna of Bangladesh, Vol. 23, Freshwater fishes (in Bengali), Asiatic society of Bangladesh, Dhaka. pp. 124-125.
  • Rahman AKA. 1989. Freshwater Fishes of Bangladesh, 1st edition, Zoological Society of Bangladesh, Department of Zoology, University of Dhaka, Dhaka-1000, p. 156.
  • Rahman AKA. 2005. Freshwater Fishes of Bangladesh, 2nd edition, Zoological Society of Bangladesh, Department of Zoology, University of Dhaka, Dhaka-1000, p. 175.
  • Shafi M and Quddus MMA. 2001. Bangladesher Matsho Shampad (Fisheries of Bangladesh) (in Bengali), Kabir publication. Dhaka, Bangladesh. pp. 167-168.
  • Talwar PK and Jhingran AG. 1991. Inland Fishes of India and Adjacent Countries, Vol. 1, Oxford & IBH Publishing Co. Pvt. Ltd. New Delhi-Calcutta, pp. 538-539.

 


English Feature:

 

Visitors' Opinion

লেখক

M.S In Fisheries Technology and B.Sc. Fisheries (Honours) from BAU. Now working as Research Assistant, WorldFish-Bangladesh and South Asia, Dhaka, Bangladesh. Contact: 01717063142, nayeem_officexp@yahoo.com

Leave a Reply