ক্যাটাগরি: মাছ | মাৎস্য সম্পদ | স্বাদুপানির মাছ

বাংলাদেশের মাছ: পিওলী, Morari, Cabdio morar

পিওলী, Morari, Cabdio morar

পিওলী, Morari, Cabdio morar

শ্রেণীতাত্ত্বিক অবস্থান (Systematic position)
পর্ব: Chordata
শ্রেণী: Actinopterygii (Ray-finned fishes)
বর্গ: Cypriniformes
পরিবার: Cyprinidae
গণ: Cabdio
প্রজাতি: Cabdio morar

সমনাম (Synonyms):
Aspidoparia morar (Hamilton, 1822)
Aspidoporia morar (Hamilton, 1822) !
Aspidopria morar (Hamilton, 1822) !
Cyprinus morar Hamilton, 1822
Leuciscus morar (Hamilton, 1822)
Morara morar (Hamilton, 1822)
Aspidoparia sardina (Heckel, 1847)

[ ! Marks misspellings of the species names that must not be used. (Fishbase, 2014)]

সাধারণনাম (Common name):
বাংলাদেশে এটি পিওলী, পিউলি, মোরার এবং মোরারী নামে পরিচিত (Rahman, 1989)।
ভারতে এটি Monah, Boreala, Bariali, Chippuah, Chelluah, Harda, Pirohia, Kenwachi, Bayi নামে পরিচিত (Talwar and Jhingran, 1991)।
English: Morari, Aspidoparia

ভৌগলিক বিস্তৃতি (Geographical Distribution):
বাংলাদেশ, ইরান, পাকিস্তানের সোয়াত নদীর অববাহিকা, ভারতের উত্তরাঞ্চল, নেপাল মায়ানমার এবং থাইল্যান্ডে এদের বিস্তৃতি লক্ষ্য করা যায় (Talwar and Jhingran, 1991)।

সংরক্ষণ অবস্থা (Conservation status):
আইইউসিএন বাংলাদেশের এর মতে বাংলাদেশে এটি বিপন্ন প্রজাতি নয় (IUCN Bangladesh, 2000) ।
Chaudhry (2010) অনুসারে এর বৈশ্বিক সংরক্ষণ অবস্থা Least Concern (LC) অর্থাৎ প্রকৃতিতে বিস্তৃত পরিসরে পর্যাপ্ত পরিমাণে পাওয়া যায়।

পিওলী, Morari, Cabdio morar

পিওলী, Morari, Cabdio morar

বাহ্যিক দৈহিক গঠন (External Morphology):
দেহ লম্বাটে এবং পার্শ্বীয়ভাবে চাপা। মুখের আকৃতি ছোট এবং নিন্মমুখী। ঊর্ধ্ব চোয়াল নিম্ন চোয়াল অপেক্ষা লম্বা। নিচের চোয়াল অর্ধচন্দ্রাকৃতির ও তীক্ষ্ণ প্রান্ত বিশিষ্ট। গলবিলীয় দাঁত তিন সারিতে অবস্থিত।
পৃষ্ঠ পাখনা শ্রোণী পাখনার গোঁড়া থেকে অনেকটা পেছনে পৃষ্ঠীয় প্রান্তে উৎপত্তি লাভ করে। পার্শ্বরেখা উপস্থিত, নিচের দিকে বাঁকানো এবং দেহের নিম্নাংশ পর্যন্ত বিস্তৃত। পার্শ্বরেখায় Talwar and Jhingran (1991) অনুসারে ৩৮- ৪২ টি এবং Rahman (1989) অনুসারে থেকে ৩৬- ৪০ টি আঁইশ বর্তমান।
মাথা আদর্শ দৈর্ঘ্য এবং মোট দৈর্ঘ্যের যথাক্রমে ২০ ও ১৬.৭ শতাংশ। দেহ উচ্চতা আদর্শ দৈর্ঘ্য এবং মোট দৈর্ঘ্যের যথাক্রমে ২২ ও ১৮.৩ শতাংশ। চোখের ব্যাস মাথার দৈর্ঘ্যের ৩০শতাংশ (Galib, 2008)।
দেহের পৃষ্ঠ পাশটার বর্ণ গাঢ় বাদামী, উভয় পাশ ও উদর হলুদাভ-রুপালী। পার্শ্ব দিকে একটি উজ্জ্বল আঁকা-বাঁকা রেখা দেখতে পাওয়া যায়। পাখনাগুলোর বর্ণ গাঢ় হলুদ। পৃষ্ঠ, বক্ষ এবং পুচ্ছ পাখনার কিছু অংশ গোলাপি বর্ণের।

পাখনা সূত্র (Fin formula):
D. 2/8-9; P1. 14-15; P2. 8; A. 2-3/8-9 (Rahman, 1989)
D ii-iii 7-8; A ii 8-10; P i 14; V i 7 (Talwar and Jhingran, 1991)

সর্বোচ্চ দৈর্ঘ্য (Maximum length):
সর্বোচ্চ দৈর্ঘ্য Rahman (1989) অনুসারে ১৩ সেমি এবং Talwar and Jhingran (1991) অনুসারে ১৭.৫ সেমি।

আবাস্থল (Habitat):
এরা জলাশয়ে তলদেশ ও উপরিভাগ উভয় অংশেই বসবাস করে। সাধারণত স্রোত বিশিষ্ট নদী ও ঝর্ণায় এদের পাওয়া যায় (Rahman, 1989)। চলন বিলেও এদের উপস্থিতি রয়েছে (Galib et al., 2009)।

অর্থনৈতিক গুরুত্ব (Economic importance):
বাংলাদেশে খাবারের মাছ হিসেবে এর প্রচলন রয়েছে। তবে একক প্রজাতি হিসেবে এই মাছের উৎপাদন তথ্য পাওয়া যায় না। বাজারে এটি টাটকা অবস্থায় পাওয়া যায় (Galib, 2008; Galib et al., 2009)। ভারতের মৎস্যখাতে এর কোন গুরুত্ব নেই (Talwar and Jhingran, 1991)।

 

তথ্য সূত্র (References):

  • Chaudhry, S. 2010. Cabdio morar. The IUCN Red List of Threatened Species. Version 2014.3. Downloaded on 02 December 2014 and from http://www.iucnredlist.org/details/166469/0
  • Fishbase (2014) Species summary: Cabdio morar (Hamilton, 1822), Morari. Retrieve on 02 December 2014 and from http://fishbase.us/summary/Aspidoparia-morar.html
  • Galib SM, Samad MA, Mohsin ABM, Flowra FA and Alam MT. 2009. Present Status of Fishes in the Chalan Beel- the Largest Beel (Wetland) of Bangladesh, Int. J. Ani. Fish. Sci. 2(3): 214-218.
  • Galib SM. 2008. A Study on Fish Diversity and Fishing Gears of Chalan Beel with Reference to Preservation of Catches, Honors dissertation submitted to the Department of Fisheries, University of Rajshahi, Bangladesh, 172 pp.
    Hamilton F. 1822. An account of the fishes found in the river Ganges and its branches. Edinburgh & London. An account of the fishes found in the river Ganges and its branches.: i-vii + 1-405, Pls. 1-39.
  • Heckel JJ. 1847. Ichthyologie. In: Russegger, J. von: Reisen in Europa, Asien und Africa, …. unternommen in den Jahren 1835 bis 1841. Ichthyologie. In: Russegger, J. von: Reisen in Europa, Asien und Africa, v. 2 (pt 3): 205-357.
  • IUCN Bangladesh. 2000. Red book of threatened fishes of Bangladesh, IUCN- The world conservation union. xii+116 pp.
  • Rahman AKA. 1989. Freshwater Fishes of Bangladesh, 1st edition, Zoological Society of Bangladesh, Department of Zoology, University of Dhaka, Dhaka-1000, pp. 86-87.
  • Talwar PK and Jhingran AG. 1991. Inland Fishes of India and Adjacent Countries, Vol. I, Oxford & IBH Publishing Co. Pvt. Ltd. New Delhi-Calcutta, p. 340.

 

 

English Feature:

 

Visitors' Opinion

লেখক

Student, B. Sc. (Hons.) in Fisheries & Marine Bioscience, Jessore University of Science & Technology, Jessore 7404 , Bangladesh. Email: mamunfmb14@gmail.com, Phone: +88 01737396359, 01917558548. More...

Leave a Reply