ক্যাটাগরি: বিদেশী মাছ | মাছ | মাৎস্য সম্পদ

গ্রাস কার্প বা ঘেসো রুই

গ্রাস কার্প বা ঘেসো রুই

গ্রাস কার্প বা ঘেসো রুই

গ্রাস কার্প বা ঘেসো রুই চীন ও পূর্ব সাইবেরিযার বিশেষত আমুর নদীতন্ত্রের মাছ যার বৈজ্ঞানিক নাম Ctenopharyngodon idella। ১৯৬৬ ও ১৯৭৯ সালে আমাদের দেশে যথাক্রমে হংকং ও জাপান থেকে চাষ এবং জলজ আগাছা নিয়ন্ত্রণের উদ্দেশ্যে আমাদের দেশে আনা হয়। নদী ছাড়াও এরা হ্রদ, খাল, পুকুরের মতো জলাশয়েও বাস করে।

দেহ লম্বা, …বিস্তারিত

ক্যাটাগরি: বিদেশী মাছ | মাছ | মাৎস্য সম্পদ

বিগহেড কার্প

বিগহেড কার্প

বাংলাদেশের চাষকৃত বিদেশী মাছ সিলভার কার্প এর মতো দেখতে এই মাছের মাথা তুলনামূলক বড় সম্ভবত একারণেই এর নাম বিগহেড কার্প। এর বৈজ্ঞানিক নাম Hypophthalmichthys nobilis, ইংরেজী নাম Bighead carp । চাপা রুপালি বর্ণের শরীর ছোট ছোট আঁইশ দিয়ে ঢাকা এবং পৃষ্ঠীদেশ ধুসর-কালো। সারা দেহে বিশেষত পৃষ্ঠদেশে কাল কাল দাগ দেখতে পাওয়া যায়। পাখনার বর্ণ গাঢ় লাল।

এই মাছের আদিবাস চীন হলেও ১৯৮১ সালে প্রথম নেপাল থেকে চাষের উদ্দেশ্যে আমাদের দেশে আনা হয় এবং পরবর্তিতে হ্যাচারিতে কৃত্রিম প্রজননের মাধ্যমে পোনা …বিস্তারিত

ক্যাটাগরি: বিদেশী মাছ | মাছ | মাৎস্য সম্পদ

মিরর কার্প

মিরর কার্প

বাংলাদেশের চাষকৃত রুই জাতীয় বিদেশী মাছের মধ্যে মিরর কার্প অন্যতম যার বৈজ্ঞানিক নাম Cyprinus carpio var. specularis এবং ইংরেজী নাম Mirror Carp। হলুদ-কমলা বর্ণের এ মাছের শরীর বেশ উজ্জ্বল। বৃহত আকৃতির পাখনাগুলোর বর্ণও হলুদ-কমলা। পৃষ্ঠদেশ ও উভয় পাশে সারিতে অথবা অগোছালোভাবে ভাবে কিছু আঁইশ দেখতে পাওয়া যায় যা অন্যান্য রুই জাতীয় মাছ থেকে একে আলাদা করেছে।

বর্তমানে সারা পৃথিবী জুড়ে বিস্তৃত এই মাছের আদিবাস কৃষ্ণ সাগর, কাস্পিয়ান ও তুর্কিস্থান। প্রাচীনকালে রোম থেকে এ মাছ গ্রিস ও ইউরোপে বিস্তারলাভ করে। পরে …বিস্তারিত

ক্যাটাগরি: বিদেশী মাছ | মাছ | মাৎস্য সম্পদ

সিলভার কার্প

সিলভার কার্প

বাংলাদেশের চাষকৃত বিদেশী মাছের মধ্যে সবচেয়ে পরিচিত মাছ হচ্ছে সিলভার কার্প যার বৈজ্ঞানিক নাম Hypophthalmichthys molitrix, ইংরেজী নাম Silver carp এবং স্থানীয়ভাবে পুকুরের ইলিশও বলা হয়ে থাকে। অনেকটা ইলিশ মাছের মতো দেখতে এই মাছ পার্শ্বীয়ভাবে ছাপা। মুখ স্পর্শী বিহীন এবং রুপালি বর্ণের শরীর ছোট ছোট আঁইশ দিয়ে ঢাকা। পাখনার বর্ণ কালো।

বর্তমানে সারা বাংলাদেশ জুড়ে বিস্তৃত এই মাছের আদিবাস চীন ও পূর্ব সাইবেরিয়া। এই মাছ ১৯৬৯ সালে প্রথম হংকং থেকে চাষের উদ্দেশ্যে আমাদের দেশে আনা …বিস্তারিত