ক্যাটাগরি: ইভেন্ট | উপকূলীয় ও সামূদ্রিক | চিংড়ি ও অন্যান্য | প্রকল্প | মাৎস্য জীববৈচিত্র্য | মাৎস্য ব্যবস্থাপনা | মাৎস্য সম্পদ

উর্মিঃ স্যাটেলাইট ট্রান্সমিটার বহনকারী বাংলাদেশের প্রথম কচ্ছপ

সামুদ্রিক কচ্ছপের অজানা তথ্য জানতে এবার বাংলাদেশের একটি কচ্ছপের পিঠে স্থাপন করা হল স্যাটেলাইট ট্রান্সমিটার। ফলে এরা কত গভীরে ডুব দেয়, কত গতিবেগে সাঁতার কাটে, কত দিন পরপর উপকূলে ডিম পাড়তে আসে, প্রতিদিন কত দূরত্ব ভ্রমণ করে ইত্যাদি তথ্য জানা সম্ভব হবে যা উল্লেখিত প্রজাতির কচ্ছপ ছাড়াও বাংলাদেশের অন্যান্য সামুদ্রিক জীববৈচিত্র্য সংরক্ষণে ব্যাপক অবদান রাখবে বলে প্রত্যাশা করা হয়।

গত ২৯ মার্চ ২০১০ সোমবার সামুদ্রিক জীববৈচিত্র্যের গবেষণা ও সংরক্ষণ সংস্থা মেরিন লাইফ এলায়েন্সের পক্ষ থেকে কক্সবাজারের মহেশখালী উপজেলার সোনাদিয়া দ্বীপে ৫৬ কেজি ওজনের জলপাই রঙের অলিভ রিডলে কচ্ছপের অর্থাৎ জলপাই কাছিমের এক সদস্যের পিঠে স্থাপন করা হয় স্যাটেলাইট ট্রান্সমিটারটি। স্যাটেলাইট ট্রান্সমিটার বহনকারী কচ্ছপটির নাম দেয়া হয়েছে- উর্মি।

উর্মি আগের দিন সন্ধ্যায় গভীর সাগর থেকে এই দ্বীপে ডিম পাড়তে এসেছিল। গভীর রাত পর্যন্ত নিজে নিজে একটি গর্ত খুঁড়ে তাতে ১১০টি ডিমও দেয়। পরবর্তিতে ডিমগুলো থেকে বাচ্চা ফোটানোর জন্য পরিবেশকর্মীরা হ্যাচারিতে সংরক্ষণ করেন।

ঊর্মির পিঠে বিশেষ ধরনের আঠা দিয়ে স্যাটেলাইট যন্ত্রটি স্থাপন করেন মেরিন লাইফ অ্যালায়েন্সের নির্বাহী পরিচালক ও গবেষক জহিরুল ইসলাম। তিনি জানান, বাংলাদেশে সামুদ্রিক কচ্ছপের গতিবিধি লক্ষ করার জন্য কচ্ছপের পিঠে আধুনিক প্রযুক্তির এই স্যাটেলাইট যন্ত্রটি স্থাপন করা হয়। স্যাটেলাইট ট্র্যাকিং হলো এ পর্যন্ত উদ্ভাবিত সর্বাধুনিক প্রযুক্তি, যা দিয়ে সারা বিশ্বে পোকামাকড় থেকে শুরু করে বৃহত্ জ্বলচর ও স্থলচর প্রাণীদের গতিবিধি লক্ষ করার কৌশল জানা যাবে।

একনজরে উর্মিঃ
প্রজাতিঃ ওলিভরিডলে টারটেল
জীবন ধাপঃ প্রাপ্তবয়স্ক
লিঙ্গঃ স্ত্রী
ওজনঃ ৫৬ কেজি
ছাড়ার তারিখঃ ২৯ মার্চ ২০০১০
ছাড়ার স্থানঃ সোনাদিয়া, মহেশখালী কক্সবাজার
বর্তমান অবস্থানঃ
১৯ নভেম্বর ২০১০ তারিখের তথ্যানুসারে উর্মি বর্তমানে শ্রীলঙ্কার কাছাকাছি ভারত সাগরে অবস্থান করছে। উর্মি এপর্যন্ত পথ পরিভ্রমণ করেছে ১১,২৪০ কিমি সোনাদিয়া হতে সরল রেখায় যার দূরত্ব ১,৩৫২ কিমি।

উর্মির গতিবিধি জানতে নিচের ম্যাপগুলো দেখে আসতে পারেন একনজর।
স্টাটিক ম্যাপজুম ম্যাপএনিমেটেড ম্যাপ

তথ্যসূত্রঃ


Visited 91 times, 1 visits today | Have any fisheries relevant question? Ask here

Visitors' Opinion

লেখক

প্রফেসর, ফিশারীজ বিভাগ, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়, রাজশাহী-৬২০৫, বাংলাদেশ। বিস্তারিত ...

Leave a Reply