ক্যাটাগরি: জীববিজ্ঞান | পূর্বপাঠ | প্রাণিবিজ্ঞান

পর্ব মোলাস্কা (Mollusca) ও অ্যানিলিডা (Annelida)

ফিশারীজ কোন মৌলিক বিজ্ঞান নয় বরং এটি জীববিজ্ঞান, রসায়ন, গণিত ও পদার্থবিজ্ঞানের একটি সমন্বিত বিজ্ঞান যা মাছ ও অন্যান্য অর্থনৈতিক গুরুত্ব বিশিষ্ট জলজ প্রাণীদের জীবতত্ত্ব, চাষ, আবাসস্থল ব্যবস্থাপনা, আহরণ, প্রক্রিয়াজনকরণ ইত্যাদি বিষয়ে বিজ্ঞানভিত্তিক আলোচনা করে। তাই ফিশারীজকে বুঝতে হলে অবশ্যই জীববিজ্ঞান, রসায়ন, গণিত ও পদার্থবিজ্ঞানের মৌলিক বিষয়াদি সম্পর্কে সুস্পষ্ট ধারণা থাকা প্রয়োজন। সে উদ্দেশ্য পূরণকল্পে শুরু হল বিডিফিশ বাংলার পূর্বপাঠ অধ্যায়। এলেখার বিষয় পর্ব মোলাস্কা (Mollusca) ও অ্যানিলিডা (Annelida)। সাথে রইল কুইজে অংশ নেয়ার সুযোগ

 

প্রাণী শ্রেণীবিন্যাস: পর্ব  মোলাস্কা (Mollusca)

মোলাস্কা পর্বের প্রাণীদের বৈশিষ্ট্য:

  • অধিকাংশ প্রাণীদের অঙ্কীয়দেশে মাংসল নরম পদ বা পা বর্তমান যা চলন (মূলত সাঁতার), গর্ত খনন ও খাবার গ্রহণে ব্যবহৃত হয়।
  • অধিকাংশ প্রাণীদের দেহ কোমল ও মাংসল এবং পেশীবিশিষ্ট আবরণ ম্যান্টলে (Mantle) আবৃত। অনেক প্রাণীতে এ আবরণ নিঃসৃত ক্যালসিয়াম কার্বোনেট ক্ষরণের মাধ্যমে খোলক (Shell) উৎপন্ন হয়।
  • দেহ মস্তক (Head), ম্যান্টল (Mantle), পদ (Foot) ও ভিসারাল মাস (Visceral mass)  -এ বিভক্ত।
  • এরা ত্রিস্তরী প্রাণী এবং এদের প্রকৃত সিলোম বর্তমান তবে তা হ্রাসকৃত (হৃদযন্ত্রের চারপাশে, জননাঙ্গের গহ্বরে ও বৃক্কের চারপাশে সীমাবদ্ধ)।
  • অধিকাংশই খণ্ডায়ন (Metamerism) বিহীন। বেশিরভাগই দ্বিপার্শ্বীয় প্রতিসম তবে অনেকেই অপ্রতিসম।
  • অধিকাংশ প্রাণীতে মস্তক, কর্ষিকা ও সংবেদী অঙ্গ বর্তমান।
  • পৌষ্টিকনালী ইউ (U) আকৃতির অথবা সোজা বা আই (I) আকৃতির। অধিকাংশের মুখ গহ্বরে র‍্যাডুলা (Radula) নামক কৃন্তক অংশ বর্তমান।
  • এরা উভলিঙ্গ (Hermaphroditic) অথবা একলিঙ্গ (Dioecious) প্রাণী। অন্তঃনিষেক অথবা বহিঃনিষেক দেখতে পাওয়া যায়।

 

মোলাস্কা পর্বের প্রাণীদের শ্রেণীবিন্যাস:

শ্রেণী: মনোপ্ল্যাকোফোরা (Monoplacophora)

[গ্রিক শব্দ Monos অর্থ One তথা এক, Plax অর্থ Plate তথা প্লেট এবং Pherein অর্থ Bearing তথা বহনকারী]

  • গোলাকার দেহ (Dome-shaped) দ্বি-পার্শ্বীয় প্রতিসম।
  • খণ্ডায়ন (Metamerism) অভ্যন্তরীণ।
  • হৃদপিণ্ড (Heart) দুই জোড়া অরিকল (Auricle) এবং একটি ভেন্ট্রিকল (Ventricle) নিয়ে গঠিত।
  • রেচনাঙ্গ ছয় জোড়া নেফ্রিডিয়া (Nephridia)  যার মধ্যে একজোড়া গোনোডাক্ট (Gonoduct) হিসেবেও কাজ করে।
  • পৃষ্ঠদেশ একটি খণ্ডযুক্ত খোলকে আবৃত যাতে বৃদ্ধি রেখা উপস্থিত।
  • পাঁচ জোড়া ফুলকা শ্বসনের কাজে জড়িত।
  • শ্বসনাঙ্গ টিনিডিয়া (Ctenidia)।
  • সকলেই সামুদ্রিক।
  • উদাহরণ: Neopilina galatheae

 

শ্রেণী: অ্যম্ফিনিউরা (Amphineura)

[গ্রিক শব্দ Amphi অর্থ Both তথা উভয় এবং Neuron অর্থ Nerve তথা স্নায়ু]

  • লম্বাটে দেহ দেখতে অনেকটা কীটের মত।
  • র‍্যাডুলা (Radula) উপস্থিত।
  • দেহের বহিস্থ খোলক (Shell) আটটি অনুপ্রস্থ পৃষ্ঠীয় প্লেটে (Dorsal plate) নির্মিত।
  • ম্যান্টল (Mantle) অসংখ্য স্পিকিউ (Spicule) যুক্ত।
  • চক্ষু, কর্ষিকা অনুপস্থিত এবং মস্তক অস্পষ্ট।
  • নিষেক বাহ্যিক এবং ট্রোকোফোর (Trochophore) লার্ভা দশা বর্তমান।
  • সকলেই সামুদ্রিক।
  • উদাহরণ: Mopalia muscosa

 

শ্রেণী: স্ক্যাফোপোডা (Scaphopoda)

[গ্রিক শব্দ Scapha অর্থ Boat তথা নৌকা এবং Podos অর্থ Foot তথা পদ]

  • লম্বাটে ও নলাকার দেহ দ্বিপার্শ্বীয়ভাবে প্রতিসম।
  • দেহ একটিমাত্র খণ্ডক বিশিষ্ট হাতির দাঁতের মত আকৃতির খোলকে আবৃত।
  • মস্তক, চোখ ও ফুলকা  অনুপস্থিত।
  • মুখে ট্যান্টাকল (Tentacle) উপস্থিত।
  • র‍্যাডুলা (Radula) বর্তমান।
  • ত্রিকোণাকার পদ মূলত বালু বা কাঁদায় গর্ত করতে ব্যবহৃত হয়।
  • বৃক্ক (Kidney) এক জোড়া, গোনাড (Gonad) একটি।
  • একলিঙ্গ (Dioecious) এবং ট্রোকোফোর (Trochophore) লার্ভা দশা বর্তমান।
  • অধিকাংশই সামুদ্রিক, অনেকেই স্বাদুপানির আবার অনেকে স্থলের বাসিন্দা।
  • উদাহরণ: Dentalium vernedei

 

শ্রেণী: গ্যাস্ট্রোপোডা (Gastropoda)

[গ্রিক শব্দ Gaster অর্থ Belly তথা উদর এবং Podos অর্থ Foot তথা পদ]

  • প্রায় গোলাকার ও প্যাঁচানো দেহ অপ্রতিসম।
  • অধিকাংশের দেহই একটিমাত্র খণ্ডক বিশিষ্ট প্যাঁচানো খোলকে আবৃত।
  • উদরের অঙ্কীয়দিকে উন্নত নরম পদ বর্তমান।
  • স্পষ্ট মস্তকে কর্ষিকা (Tentacle) ও চোখ উপস্থিত।
  • র‍্যাডুলা (Radula) বর্তমান।
  • উদাহরণ: Pila globosa (Apple snail)

 

শ্রেণী: পেলেসিপোডা (Pelecypoda) [পূর্ববর্তী শ্রেণী বাইভালভিয়া (Bivalvia)]

[গ্রিক শব্দ Pelekus অর্থ Hatchet এবং Podos অর্থ Foot তথা পদ]

  • একই আকার-আকুতির দুটি খোলকে আবৃত দেহ পার্শ্বীয়ভাবে চাপা এবং দ্বি-পার্শ্বীয়ভাবে প্রতিসম।
  • খোলক দুটি একপাশে এমনভাবে সংযুক্ত যাতে খোলক দুটি খুলতে বা বন্ধ হতে পারে।।
  • জিহ্বা আকৃতির নরম পদ চলন ও কাঁদা মাটি খোঁড়ায় ব্যবহৃত হয়।
  • সংক্ষিপ্ত মস্তকে কর্ষিকা ও চোখ অনুপস্থিত।
  • সাধারণত একলিঙ্গ (Dioecious) প্রাণী এবং ভ্যালিগার (Veliger) অথবা গ্লোকিডিয়াম (Glochidium) লার্ভা দশা বর্তমান।
  • অধিকাংশই সামুদ্রিক, সামান্য কিছু স্বাদুপানির বাসিন্দা।
  • উদাহরণ: Lamellidens marginalis (ঝিনুক)

 

শ্রেণী: সেফালোপোডা (Cephalopoda)

[গ্রিক শব্দ Kephale অর্থ Head তথা মস্তক বা মাথা এবং Podos অর্থ Foot তথা পদ]

  • লম্বা দেহ দ্বি-পার্শ্বীয়ভাবে প্রতিসম।
  • অনেক প্রাণীতে খোলক অনুপস্থিত, যাদের উপস্থিত তাদের খোলক প্রকোষ্ঠবিশিষ্ট ও বাহিরে অবস্থিত অথবা ম্যান্টলের ভেতরে অবস্থিত।
  • স্পষ্ট মস্তকে উন্নত চোখ বর্তমান। মস্তকের সম্মুখের অবস্থিত বাহু (Tentacle) অসংখ্য চোষক বিশিষ্ট যা সাইফনে (Siphone) রূপান্তরিত হয়েছে।
  • উন্নত মস্তক কর্ষিকায় পরিবৃত্ত এবং Prehensile প্রকৃতির।
  • র‍্যাডুলা (Radula) বর্তমান।
  • একলিঙ্গ (Dioecious) প্রাণী এবং লার্ভা দশা অনুপস্থিত।
  • সামুদ্রিক এবং মুক্ত সাঁতারু।
  • উদাহরণ: Octopus vulgaris (অক্টোপাস)

 

প্রাণী শ্রেণীবিন্যাস: পর্ব  অ্যানিলিডা (Annelida)

অ্যানিলিডা পর্বের প্রাণীদের বৈশিষ্ট্য:

  • মেসোডার্ম থেকে উদ্ভূত এবং প্যারাইটাল ও ভিসারাল আবরণী বিশিষ্ট প্রকৃত সিলোম (Coelom) বর্তমান।
  • লম্বা ও নলাকার দেহ অনেকগুলো আংটির মতো খণ্ডাংশ নিয়ে গঠিত। অর্থাৎ এদের দেহে বাহ্যিক অথবা অভ্যন্তরীণ ও বাহ্যিক উভয় ধরনের খণ্ডায়ন (Metamerism) দেখতে পাওয়া যায়।
  • কাইটিন জাত সিটি (Setae) এবং/অথবা দেহের উভয় পাশে অবস্থিত জোড় প্যারাপোডিয়া (Parapodia) চলনাঙ্গ হিসেবে কাজ করে।
  • রক্ত সংবহনতন্ত্র বদ্ধ ধরনের এবং খণ্ডকীয়ভাবে বিন্যস্ত। রক্ত রসে অ্যামিবোসাইট এবং কয়েক ধরনের শ্বসন রঞ্জক উপস্থিত।
  • প্রায় প্রতি খণ্ডেই রেচন অঙ্গ হিসেবে নেফ্রিডিয়া (Nephridia) উপস্থিত।
  • দেহ এক্টোডার্ম নিঃসৃত স্বচ্ছ ও স্যাঁতস্যাঁতে কাইটিনবিহীন কিউটিকলে আবৃত।
  • এরা ত্রিস্তর বিশিষ্ট এবং দ্বিপার্শ্বীয় প্রতিসাম্যতা বর্তমান।
  • পূর্ণাঙ্গ পরিপাকতন্ত্রের মাধ্যমে পরিপাক সম্পন্ন হয়ে থাকে। রক্ত সংবহনতন্ত্র বদ্ধ ধরণের।
  • আর্দ্র ত্বক, মস্তক অথবা প্যারাপোডিয়ার ফুলকার (Gill of parapodia) মাধ্যমে শ্বসন সম্পন্ন হয়ে থাকে।
  • এক জোড়া সেরিব্রাল গ্যাংগ্লিয়া (Cerebral Ganglia) (যা মস্তিষ্ক হিসেবে কাজ করে), গ্যাংগ্লিয়া বিশিষ্ট এক জোড়া অঙ্কীয় স্নায়ুরশ্মি এবং প্রতি খণ্ডকে পার্শ্বীয় স্নায়ু নিয়ে স্নায়ুতন্ত্র গঠিত।
  • বেশীরভাগই উভলিঙ্গ (Hermaphroditic), অনেকেই একলিঙ্গ (Dioecious)। অনেকের ট্রোকোফোর (Trochophore) নামক লার্ভা দশা বর্তমান। পুনরুপত্তির (Regeneration) ক্ষমতা বর্তমান।

 

অ্যানিলিডা পর্বের প্রাণীদের শ্রেণীবিন্যাস:

শ্রেণী: পলিকিটা (Polychaeta)

[গ্রিক শব্দ Polys অর্থ Many তথা অনেক এবং Chaite অর্থ Hair তথা লোম বা চুল]

  • মস্তক স্পষ্ট এবং চোখ, পাল্প (Palp) এবং টেন্টাকল (Tentacle) নামক উপাঙ্গ বিশিষ্ট।
  • অধিকাংশ দেহ খণ্ডাংশে সিটিসহ (Setae) প্যারাপোডিয়া (Parapodia) বর্তমান।
  • একলিঙ্গ (Dioecious) প্রাণী (একটি প্রাণীদেহে হয় পুরুষ জননাঙ্গ অথবা স্ত্রী জননাঙ্গ উপস্থিত) এবং অস্থায়ী জননাঙ্গ (পুরুষ প্রাণীদের পুরুষ জননাঙ্গ এবং স্ত্রী প্রাণীতে স্ত্রী জননাঙ্গ) অনেক দেহখণ্ডে উপস্থিত।
  • ক্লাইটেলাম (Clitellum) অনুপস্থিত।
  • জীবনচক্রে মুক্ত সাঁতারু ট্রোকোফোর (Trochophore) লার্ভা দেখতে পাওয়া যায়।
  • অধিকাংশই সামুদ্রিক তবে কয়েকটি প্রজাতি স্বাদুপানির বাসিন্দা।
  • উদাহরণ: Neanthes virens (Neris)

 

শ্রেণী: ওলিগোকিটা (Oligochaeta)

[গ্রিক শব্দ Oligos অর্থ Few তথা কিছু এবং Chaite অর্থ Hair তথা লোম বা চুল]

  • মস্তক অস্পষ্ট এবং উপাঙ্গ বিহীন।
  • সিটি বর্তমান কিন্তু প্যারাপোডিয়া অনুপস্থিত।
  • উভলিঙ্গ (Hermaphroditic) প্রাণী অর্থাৎ একই প্রাণীদেহে পুরুষ ও স্ত্রী জননাঙ্গ উপস্থিত। কেবলমাত্র সুনির্দিষ্ট দেহখণ্ডকে এক থেকে দুই জোড়া জননাঙ্গ উপস্থিত। স্ত্রী জননাঙ্গ বিশিষ্ট দেহ খণ্ডাংশের সম্মুখের তথা অগ্র প্রান্তের দেহ খণ্ডাংশে পুরুষ জননাঙ্গ অবস্থিত।
  • সুস্পষ্ট ক্লাইটেলাম (Clitellum) উপস্থিত।
  • বহিঃনিষেক বর্তমান এবং নিষিক্ত ডিমের পরিস্ফুটন কোকুনের (Cocoon) অভ্যন্তরে সম্পন্ন হয়ে থাকে।
  • জীবনচক্রে লার্ভা দশা অনুপস্থিত।
  • উদাহরণ: Metaphire posthuma (কেঁচো, Earth worm)

 

শ্রেণী: হিরুডিনিয়া (Hirudinea)
[ল্যাটিন শব্দ Hirudo অর্থ Leech তথা জোঁক]

  • মস্তক অস্পষ্ট এবং উপাঙ্গ বিহীন।
  • সিটি ও প্যারাপোডিয়া উভয়ই অনুপস্থিত।
  • প্রতিটি প্রাণীদেহের অগ্র ও পশ্চাৎ প্রান্তে একটি করে চোষক অঙ্গ (Suckers) উপস্থিত।
  • এদের খণ্ডায়ন (Metamerism) শুধুমাত্র বাহ্যিক।
  • সকল প্রজাতিতে দেহ খণ্ডকের সংখ্যা সুনির্দিষ্ট। প্রতিটি দেহ খণ্ডক আবার এ্যানুলি (Annuli) নামক উপখণ্ডকে বিভক্ত।
  • ক্লাইটেলাম (Clitellum) অনুপস্থিত।
  • উভলিঙ্গ (Hermaphroditic) প্রাণী (একই প্রাণীদেহে পুরুষ ও স্ত্রী জননাঙ্গ উপস্থিত)। শুক্রাশয় সংখ্যায় অনেক কিন্তু ডিম্বাশয় মাত্র একজোড়া। তবে জননছিদ্র (Gonopore) পুরুষ ও স্ত্রী উভয় প্রাণীতেই মাত্র একটি।
  • অন্তঃনিষেক বর্তমান এবং নিষিক্ত ডিমের পরিস্ফুটন কোকুনের (Cocoon) অভ্যন্তরে সম্পন্ন হয়ে থাকে।
  • জীবনচক্রে লার্ভা দশা অনুপস্থিত।
  • অধিকাংশই বহিঃপরজীবী। চোষক অঙ্গের (Suckers) মাধ্যমে অন্য প্রাণীর রক্ত চুষে সংগ্রহ করে থাকে।
  • উদাহরণ: Hirudo medicinalis (জোঁক)

 

কুইজে অংশ নিতে লিঙ্কটি অনুসরণ করুন

 

Visitors' Opinion

লেখক

প্রাণিবিদ্যায় স্নাতক ও স্নাতকোত্তর। বিস্তারিত

Leave a Reply