ক্যাটাগরি: নানাবিধ | প্রশ্ন-উত্তর

পৃথিবীর সবচেয়ে দ্রুতগতির মাছ কোনটি?

পৃথিবীর সবচেয়ে দ্রুতগতির মাছের নাম সেইলফিশ (Sailfish)। ঘন্টায় ১১০ কিমি বা ৭০ মাইল গতিতে সাঁতার কাটতে পারে যা এই মাছটিকে এনে দিয়েছে পৃথিবীর সবচেয়ে দ্রুতগতির মাছের খ্যাতি।

Istiophorus জেনাসের অন্তর্ভুক্ত মোট দুই প্রজাতির সেইলফিশ সারা পৃথিবীজুড়ে সমুদ্রের উষ্ণ জলের এলাকায় বসবাস করে।

ধূসর-নীল বর্ণের এই মাছ এক বছরেই ১.২ থেকে ১.৫ মিটার (৪-৫ ফুট) হয়ে থাকে। সাধারণত এই মাছ ৩ মিটারের (১০ ফুট) বেশী লম্বা হয় না এবং সর্বোচ্চ ওজন ৯০ কেজী হতে পারে।

এর বিস্তৃত পৃষ্ঠপাখনা এবং লম্বা তুণ্ড একে সহজেই অন্য …বিস্তারিত

ক্যাটাগরি: নানাবিধ | প্রশ্ন-উত্তর

উষ্ণ রক্ত বিশিষ্ট প্রাণী ও শীতল রক্ত বিশিষ্ট প্রাণী বলতে কি বোঝায়?

উষ্ণ রক্ত বিশিষ্ট প্রাণী যেসব প্রাণীরা দেহের তাপমাত্রা আভ্যন্তরীণভাবে নিয়ন্ত্রণ করতে পারে ফলে এদের দেহের তাপমাত্রা পরিবেশের তাপমাত্রা পরিবর্তনের সাথে পরিবর্তিত না হয়ে একটি সুনির্দিষ্ট মাত্রায় অবস্থান করে তাদেরকে উষ্ণ রক্ত বিশিষ্ট প্রাণী বলে। যেমন- মানুষ, বাঘ, পাখি ইত্যাদি।

সাধারণত শীতল পরিবেশে এরা দেহাভ্যন্তরে গৃহীত খাদ্য থেকে বাড়তি তাপ উৎপাদন করতে পারে আবার এদের দেহস্থ সঞ্চিত ফ্যাট অথবা লোম বা পালকের মত অঙ্গ দেহস্থ তাপ হারাতে বাঁধা দেয়। অন্যদিকে উষ্ণ পরিবেশে তাদের দেহ উপরিস্থ জলীয় উপাদান (moisture ) বাষ্পীভবনের (evaporation ) মাধ্যমে শরীরকে শীতল রাখতে …বিস্তারিত

ক্যাটাগরি: নানাবিধ | প্রশ্ন-উত্তর

জলচর পাখি বলতে কি বোঝায়?

যেসব পাখি তাদের জীবনের বেশীর ভাগ সময় জলজ পরিবেশে অবস্থান করে তাদেরকে জলচর পাখি বলে।

জলচর পাখির শারীরিক এবং আচরণজনিত বৈশিষ্ট্যসমূহ (খাদ্যগ্রহণ ও প্রজননিক আচরণ ইত্যাদি) জলজ পরিবেশে অবস্থানের জন্য বিশেষভাবে অভিযোজিত। যেমন- জলজ পরিবেশে হাঁটা, সাতার কাটা, ডুব দেয়া, খাদ্য গ্রহণ, অন্তরঙ্গ সময় কাটানো ইত্যাদি।

বাংলাদেশের উল্লেখযোগ্য জলচর পাখিঃ ডাহুক, পানকৌড়ি, পানিকাটা, ইত্যাদি।

এখানে-

পাখিঃ উষ্ণ-রক্ত বিশিষ্ট ডিম পাড়া মেরুদণ্ডী প্রাণী যাদের শরীর পালক দ্বারা আবৃত এবং অগ্রপদ পাখায় রূপান্তরিত হয়েছে তাদেরকে পাখি বলে। উষ্ণ-রক্ত বিশিষ্ট (homoithermal বা warm-blooded) প্রাণী বলতে সেসব প্রাণীদের …বিস্তারিত

ক্যাটাগরি: নানাবিধ | প্রজনন জীববিদ্যা | প্রশ্ন-উত্তর | মাৎস্য জীববিজ্ঞান

মাছ কি পার্থেনোজেনেসিস প্রক্রিয়ায় বংশবিস্তার করতে পারে?

প্রকৃতিতে মাছ, ব্যাঙ, সরীসৃপ, পাখিসহ মেরুদণ্ডী প্রাণিকুলের প্রায় ৭০ টি প্রজাতির স্ত্রীরা পুরুষের অংশগ্রহণ ছাড়াই বংশ বিস্তার করতে পারে। পুরুষের অংশগ্রহণ ছাড়াই (অর্থাৎ পুরুষ দ্বারা ডিম্বাণুর নিষিক্ত হওয়া ছাড়াই) স্ত্রী প্রাণীরা যে প্রক্রিয়ায় বংশবিস্তার করে সেই প্রক্রিয়াকে বলা হয় পার্থেনোজেনেসিস [English- Parthenogenesis (from Gr. parthenos means virgin and genesis means creation)]। সাধারণত অমেরুদণ্ডী প্রাণীদের (যেমন- এফিড, নিমাটোড, মাছি ইত্যাদি) মধ্যে এই প্রক্রিয়া দেখতে পাওয়া যায়। তবে মেরুদণ্ডীদের মধ্যেও এই প্রক্রিয়ায় বংশবিস্তারের বেশ কিছু প্রমাণ বিজ্ঞানীরা পেয়েছেন।

মাছের মধ্যে বেশ কিছু হাঙ্গর (যেমন- bonnethead shark, white-spotted …বিস্তারিত

ক্যাটাগরি: নানাবিধ | প্রশ্ন-উত্তর

মাছ বলতে কি বোঝায়?

“মাছ” শীতল রক্ত বিশিষ্ট জলজ মেরুদণ্ডী প্রাণী যারা পাখনার সাহয্যে সাঁতার কাটে এবং ফুলকার সাহায্য শ্বাস-প্রশ্বাস চালায়। যেমন- রুই, কাতলা, মৃগেল, ইলিশ ইত্যাদি।

এখানে- শীতল-রক্ত বিশিষ্ট প্রাণীঃ শীতল-রক্ত বিশিষ্ট (Poikilothermy বা Cold-blooded) প্রাণী বলতে সেসব প্রাণীদের বোঝায় যাদের দেহের তাপমাত্রা শরীরবৃত্তীয়ভাবে নিয়ন্ত্রিত না হয়ে বাহ্যিক পরিবেশ দ্বারা নিয়ন্ত্রিত হয়ে থাকে অর্থাৎ দেহের তাপমাত্রা সুনির্দিষ্ট নয়, পরিবেশের তাপমাত্রা বাড়লে দেহের তাপমাত্রা বাড়ে আবার পরিবেশের তাপমাত্রা কমলে দেহের তাপমাত্রা কমে। যেমন- মাছ, ব্যাঙ, কুমির ইত্যাদি।

মেরুদণ্ডী প্রাণীঃ যাদের দেহের পৃষ্ঠদেশ বরাবর একাধিক কশেরুকা নির্মিত মেরুদণ্ড রয়েছে তাদেরকে …বিস্তারিত