ক্যাটাগরি: উপকূলীয় ও সামূদ্রিক | মাৎস্য চাষ | স্বাদুপানি

বাংলাদেশের দক্ষিণাঞ্চলে গলদা চাষের সম্ভাবনা

সহলেখক: মুহাম্মদ জাকির হোসেন, এ্যাকুয়াকালচার ফর ইনকাম এন্ড নিউট্রিশন প্রকল্প, ওয়ার্ল্ডফিস-বাংলাদেশ, বরিশাল

মিঠা পানির গলদা (Macrobrachium rosenbergii)

মিঠা পানির গলদা (Macrobrachium rosenbergii)

ভূমিকা: বাংলাদেশের মৎস্য সম্পদে মিঠা পানির গলদা (Macrobrachium rosenbergii) গুরুত্বপূর্ণ স্থান দখল করে আছে। বাগদার পাশাপাশি গলদাও রফতানি হচ্ছে বিশ্বের বিভিন্ন দেশে। এর মাধ্যমে প্রচুর বৈদেশিক মুদ্রা আয়ের পাশাপাশি দেশে কর্মসংস্থান সৃষ্টি ও দরিদ্রতা দূরীকরণে গলদা উল্লেখযোগ্য ভূমিকা …বিস্তারিত

ক্যাটাগরি: মাৎস্য চাষ | স্বাদুপানি | হ্যাচারি

মাছচাষের পুকুরের শিকারি ও অনাকাঙ্ক্ষিত মাছ নিয়ন্ত্রণ: পর্ব-২

প্রিয় পাঠক, মাছচাষের পুকুরের শিকারি ও অনাকাঙ্ক্ষিত মাছ নিয়ন্ত্রণ: পর্ব-১ এ আঁতুড় ও অন্যান্য পুকুরের শিকারি ও অনাকাঙ্ক্ষিত মাছের তালিকা এবং তা নিয়ন্ত্রণের অন্যতম পদ্ধতি পানি অপসারণ সম্পর্কে লিখেছিলাম। শিকারি ও অনাকাঙ্ক্ষিত মাছ নিয়ন্ত্রণের অন্যান্য পদ্ধতি সম্পর্কে আলোচনা করা হল এ পর্বে।

 

বারবার জাল টানা:

পদ্ধতি:

জলাশয়ের একপ্রান্ত থেকে অন্য প্রান্ত পর্যন্ত ঘন ফাঁসের বেড় জাল পুকুরের একপ্রান্ত থেকে অন্য প্রান্ত পর্যন্ত বারবার টেনে অধিকাংশ মাছ ধরে ফেলা যায় যদিও সব মাছ ধরার নিশ্চয়তা পাওয়া যায় না।

সাবধানতা:

…বিস্তারিত

ক্যাটাগরি: মাৎস্য চাষ | স্বাদুপানি | হ্যাচারি

মাছচাষের পুকুরের শিকারি ও অনাকাঙ্ক্ষিত মাছ নিয়ন্ত্রণ: পর্ব-১

মাছচাষের বিভিন্ন ধরণের পুকুরের মধ্যে আঁতুড় পুকুরে (Nursery pond) শিকারি ও অনাকাঙ্খিত মাছের উপস্থিতি মারাত্মক ক্ষতিকর বলে বিবেচিত হয়ে থাকে কারণ শিকারি (Predatory) মাছ ডিমপোনা, রেণুপোনা, ধানীপোনা ও আঙ্গুলিপোনাকে সহজেই শিকার করে খেয়ে ফেলতে পারে আবার এরা চাষের মাছের সাথে স্থান, খাবার ও অক্সিজেন ব্যবহারের মত গুরুত্বপূর্ণ বিষয়েও প্রতিযোগিতা করে থাকে। অন্যদিকে অনাকাঙ্ক্ষিত মাছ (Unwanted fish) বা অবাঞ্ছিত মাছ (Undesirable fish) বা আমাছা মাছ (Weed fish) চাষের মাছকে শিকার করে না খেলেও তাদের সাথে স্থান, খাবার ও অক্সিজেন ব্যবহারের মত rপ্রতিদ্বন্দ্বিতামূলক বিষয়ে প্রতিযোগিতা করে থাকে। …বিস্তারিত

ক্যাটাগরি: প্রকাশনা | বইপত্র

বই পরিচিতি: একোয়াকালচার

“একোয়াকালচার” বইটির প্রচ্ছদ

“একোয়াকালচার” বইটির প্রচ্ছদ

বাংলাদেশের মাছ চাষিদের জন্য উৎসর্গীকৃত “একোয়াকালচার” শিরোনামের বইটির লেখক বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাক্তন উপাচার্য এবং একই বিশ্ববিদ্যালয়ের মাৎস্যবিজ্ঞান অনুষদের তৎকালীন একোয়াকালচার ও ম্যানেজমেন্ট বিভাগের প্রফেসর ড. আনোয়ারুল ইসলাম। বইটি মাৎস্যবিজ্ঞানের স্নাতক (সম্মান) ও স্নাতকোত্তর শ্রেণীর পাঠ্যক্রম অনুসারে প্রণয়ন করা হলেও একোয়াকালচারের বিভিন্ন পদ্ধতি সম্পর্কে বিশ্বের বিভিন্ন দেশের সাম্প্রতিক অগ্রগতিসহ বিস্তৃতভাবে আলোচনা করা হয়েছে যা মাৎস্যবিজ্ঞানের শিক্ষার্থী, শিক্ষক ও গবেষকের …বিস্তারিত

ক্যাটাগরি: পরিবেশ | পরিবেশ | মাৎস্য চাষ | মাৎস্য জীববৈচিত্র্য | মাৎস্য ব্যবস্থাপনা | স্বাদুপানি | স্বাদুপানি

প্লাবনভূমিতে মাছ চাষ: দেশীয় মৎস্য জীববৈচিত্র্যের কফিনে ঠোকা শেষ পেরেক

যে ভূমি বছরে ৩-৪ মাস বন্যার প্লাবিত জলে ডুবে থাকে সে ভূমিকে সাধারণভাবে প্লাবনভূমি বলা হয়ে থাকে। হিমালয়ের ভাটিতে অবস্থিত এই সমতল ভূমির এটিই স্বাভাবিক বৈশিষ্ট্য যে প্রতি বর্ষায় উজানের বন্যার পানি ভাটির উপর দিয়ে প্রবাহিত হয়ে বঙ্গোপসাগরে গিয়ে পড়ে। অল্প সময়ে অধিক পরিমাণ পানির প্রবাহ কেবলমাত্র নদীর মাধ্যমে সম্পন্ন হওয়া সম্ভব হয় না বলেই অতিরিক্ত পানি নদী উপচে সমতল জমিতে প্রবেশ করে তাকে জলমগ্ন করে তোলে। এভাবে কয়েক মাস চলার পর বৃষ্টির পরিমাণ কমে এলে ভূমি থেকে পানি নেমে যেতে থাকে এবং একটা সময় …বিস্তারিত