ক্যাটাগরি: মাৎস্য পরিসংখ্যান | মাৎস্য সম্পদ

বাংলাদেশের মৎস্য সম্পদ পরিসংখ্যান (২০১২-২০১৩): একটি তুলনামূলক পর্যালোচনা

একুশ শতকে বাংলাদেশের মাছ উৎপাদন প্রবণতা

একুশ শতকে বাংলাদেশের মাছ উৎপাদন প্রবণতা

বাংলাদেশের মৎস্য অধিদপ্তর বিগত বছরগুলোর মত ২০১৪ সালেও ২০১২-২০১৩ অর্থ বছরের মৎস্য সম্পদের বছরভিত্তিক পরিসংখ্যান প্রকাশ করেছে। সেই পরিসংখ্যানের গুরুত্বপূর্ণ অংশ এখানে তুলনামূলক বিশ্লেষণসহ উপস্থাপন করা হল। বিগত বছরের পরিসংখ্যান: ২০১১-২০১২, ২০১০-২০১১, ২০০৯-২০১০, ২০০৮-২০০৯

 

অভ্যন্তরীণ …বিস্তারিত

ক্যাটাগরি: মাৎস্য পরিসংখ্যান | মাৎস্য সম্পদ

বাংলাদেশের মৎস্য সম্পদ পরিসংখ্যান (২০১১-২০১২): একটি তুলনামূলক পর্যালোচনা

বাংলাদেশের মৎস্য অধিদপ্তর বিগত বছরগুলোর মত ২০১৩ সালেও ২০১১-২০১২ অর্থ বছরের মৎস্যসম্পদের বছরভিত্তিক পরিসংখ্যান প্রকাশ করেছে। সেই পরিসংখ্যানের গুরুত্বপূর্ণ অংশ এখানে তুলনামূলক বিশ্লেষণসহ উপস্থাপন করা হল।

 

অভ্যন্তরীণ ও সামুদ্রিক জলায়তন: বাংলাদেশের অভ্যন্তরীণ মৎস্যের জলায়তনের মধ্যে উন্মুক্ত জলাশয়ের জলায়তনের পরিমাণ কমলেও (-২.৪৮%) বেড়েছে বদ্ধ জলাশয়ের আয়তন (+১৪.০৫%)। বদ্ধ জলাশয়ের মধ্যে পুকুর ও বাঁওড়ের (অক্সবো লেক) জলায়তনের পরিমাণ অপরিবর্তিত থাকলেও কমেছে চিংড়ি খামারের আয়তন (-০.৪৬%)। এবছর আধাবদ্ধ জলাশয়ের পরিবর্তে মৌসুমি জলাশয় সংযুক্ত হয়েছে যার জলায়তন ১,২২,০২৬ হেক্টর। অন্যদিকে উন্মুক্ত জলাশয়ের মধ্যে নদী ও মোহনা, সুন্দরবন, বিল …বিস্তারিত

ক্যাটাগরি: মাৎস্য পরিসংখ্যান | মাৎস্য সম্পদ

বাংলাদেশের মৎস্য সম্পদ পরিসংখ্যানঃ ২০১০-২০১১

বাংলাদেশের মৎস্য অধিদপ্তর বিগত বছরগুলোর মত ২০১২ সালেও ২০১০-২০১১ অর্থ বছরের মৎস্য সম্পদের বছরওয়ারি পরিসংখ্যান প্রকাশ করেছে। সেই পরিসংখ্যানের গুরুত্বপূর্ণ অংশ এখানে বিশ্লেষণসহ উপস্থাপন করা হল। মূলত ২০১০-২০১১ বছরের মৎস্য সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন ক্যাটাগরি ভিত্তিক তথ্য-উপাত্ত এবং এর বাৎসরিক বৃদ্ধি বা হ্রাসের শতকরা হার এখানে উপস্থাপন করা হয়েছে। অভ্যন্তরীণ ও সামুদ্রিক মৎস্যের জলায়তন: বাংলাদেশের অভ্যন্তরীণ মৎস্যের জলায়তনের মধ্যে উন্মুক্ত জলাশয়ের জলায়তনের পরিমাণ অপরিবর্তিত থাকলেও বেড়েছে বদ্ধ জলাশয়ের আয়তন (+৮.১২%)। পুকুর, চিংড়ি খামার, আধাবদ্ধ জলাশয়ের জলায়তন বাড়লেও কমেছে বাঁওড়ের (অক্সবো লেক) জলায়তনের পরিমাণ (-৩৫.৮৬%) [টেবিল- …বিস্তারিত

ক্যাটাগরি: মাৎস্য পরিসংখ্যান | মাৎস্য সম্পদ

বাংলাদেশের মৎস্য সম্পদ পরিসংখ্যানঃ ২০০৯-২০১০

বাংলাদেশের মৎস্য অধিদপ্তর বিগত বছরগুলোর মত ২০১১ সালেও ২০০৯-২০১০ অর্থ বছরের মৎস্য সম্পদের বছরওয়ারি পরিসংখ্যান প্রকাশ করেছে। সেই পরিসংখ্যানের গুরুত্বপূর্ণ অংশ এখানে বিশ্লেষণসহ উপস্থাপন করা হল। মূলত ২০০৯-২০১০ বছরের মৎস্য সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন ক্যাটাগরি ভিত্তিক তথ্য/উপাত্ত এবং এর বাৎসরিক বৃদ্ধি বা হ্রাসের শতকরা হার এখানে দেখানো হয়েছে।

অভ্যন্তরীণ ও সামুদ্রিক মৎস্যের জলায়তন: বাংলাদেশের অভ্যন্তরীণ মৎস্যের জলায়তনের মধ্যে বদ্ধ জলাশয়ের পরিমাণ বাড়লেও (১৫.৮৩%) কমেছে উন্মুক্ত জলাশয়ের পরিমাণ (-০.৫৬%)। বদ্ধ জলাশয়ের মধ্যে আধাবদ্ধ জলাশয় হিসেবে নতুন যোগ হয়েছে প্লাবনভূমি যার পরিমাণ ২২,৩৮২ হেক্টর। অন্যদিকে সুন্দরবনসহ নদী ও মোহনা, …বিস্তারিত

ক্যাটাগরি: মাৎস্য পরিসংখ্যান | মাৎস্য সম্পদ

বাংলাদেশের মৎস্য সম্পদ পরিসংখ্যান: ২০০৮-২০০৯

বাংলাদেশের মৎস্য অধিদপ্তর অন্যান্য বছরের মত ২০১০ সালেও ২০০৮-২০০৯ বছরের মৎস্য সম্পদের বছরওয়ারি পরিসংখ্যান প্রকাশ করেছে। সেই পরিসংখ্যানের গুরুত্বপূর্ণ অংশ এখানে বিশ্লেষণসহ উপস্থাপন করা হল। মূলত ২০১০ সালের বিভিন্ন মৎস্য সংশ্লিষ্ট ক্যাটাগরি ভিত্তিক তথ্য/উপাত্ত এবং এর বাৎসরিক বৃদ্ধি বা হ্রাসের শতকরা হার এখানে দেখানো হয়েছে।

অভ্যন্তরীণ মৎস্যের জলায়তন (৪৫,৭৫,৭০৬ হেক্টর) ও সামুদ্রিক মৎস্যের জলায়তন গত এক বছরে অপরিবর্তিত রয়েছে। যেমনটি অপরিবর্তিত রয়েছে সামুদ্রিক মৎস্যে জলায়তন, জেলের সংখ্যা, মৎস্য চাষির সংখ্যা (টেবিল-এক, দুই, তিন ও চার)।

টেবিল-একঃ অভ্যন্তরীণ মৎস্যের জলায়তন

বিবরণ

পরিমাণ

…বিস্তারিত

ক্যাটাগরি: মাৎস্য পরিসংখ্যান | মাৎস্য সম্পদ

বাংলাদেশের মৎস্য সম্পদ পরিসংখ্যান: ২০০৭-০৮

চাষের মাধ্যমে মৎস্য উৎপাদনে বিশ্বে বাংলাদেশের অবস্থান ৬ষ্ঠ। গত দুই দশকে অহরণকৃত মাৎস্য উৎপাদন বেড়েছে ৬ শতাংশ এবং চাষের মাধ্যমে মৎস্য উৎপাদন বেড়েছে ২২ শতাংশ। মোট অভ্যন্তরীণ জলাশয়ের ৬.৬৭ শতাংশ এবং মোট বদ্ধ জলাশয়ের ৫৭.৭৩ শতাংশ পুকুর। অথচ মোট অভ্যন্তরীণ জলাশয়ের ৪১.৯২ শতাংশ এবং মোট বদ্ধ জলাশয়ের ৮৬.১২ শতাংশ মৎস্য উৎপাদন হয় পুকুর থেকে। চাষকৃত পুকুরের মোট মৎস্য উৎপাদনের ৮৪.২২ ভাগই আসে রুই জাতীয় মাছ থেকে। দেশের মোট মৎস্য উৎপাদনের ৩৯ ভাগ (অভ্যন্তরীণ জলাশয়ের ৪৯%) আসে মাছ চাষের মাধ্যমে। হেক্টরপ্রতি গড় মৎস্য উৎপাদন পুকুরে …বিস্তারিত