ক্যাটাগরি: জলাশয় | মাৎস্য সম্পদ

বাংলাদেশের নদী: পদ্মা

রাজশাহী শহরের পাশ দিয়ে প্রবাহিত পদ্মা

রাজশাহী শহরের পাশ দিয়ে প্রবাহিত পদ্মা

পদ্মা বাংলাদেশের দ্বিতীয় দীর্ঘতম নদী (Hossain et al., 2005)। হিমালয় পর্বতমালার গঙ্গোত্রী নামক হিমবাহ হতে গঙ্গা নামে উৎপত্তি হয়ে ভারতের মধ্য দিয়ে প্রবাহিত হয়ে পশ্চিমবঙ্গের মুর্শিদাবাদ হতে বাংলাদেশের চাঁপাই নবাবগঞ্জের শিবগঞ্জ উপজেলায় (মানাকোসা ও দুর্লভপুর ইউনিয়ন) নদীটি বাংলাদেশে প্রবেশ করেছে। এবং এখান থেকেই নদীটি পদ্মা নামে পরিচিতি লাভ করেছে। বাংলাদেশে এর দৈর্ঘ্য ৩৬৬ কিলোমিটার (Hossain et al., 2005)। বাংলাদেশের বিভিন্ন জেলার উপর দিয়ে …বিস্তারিত

ক্যাটাগরি: চিংড়ি ও অন্যান্য | মাৎস্য সম্পদ

বাংলাদেশের লবস্টার

লবস্টার আর্থোপোডা পর্বের ক্রাস্টাশিয়া শ্রেণীর অন্তর্গত চিংড়ির ন্যায় এক ধরনের প্রাণী (Samad, 2010)। ক্রাস্টাশিয়া শ্রেণীভূক্ত প্রাণীদের মধ্যে লবস্টার সবচেয়ে সুস্বাদু এবং সৌন্দর্য্যে অতুলনীয় (Paul, 2001)। লবস্টারের মাংসল পুচ্ছ খাদ্য হিসেবে ব্যবহৃত হয় (Shafi and Quddus, 2001) যা ‌‌লবস্টার টেইল হিসেবে বিক্রেতা ও ক্রেতাদের কাছে পরিচিত (Paul, 2001)। দক্ষিণ আটলান্টিক সমুদ্রের লবস্টার বিশ্বে সবচেয়ে জনপ্রিয় (Paul, 2001)।

বাংলাদেশে প্রাপ্ত লবস্টার প্রজাতিসমূহ: বিশ্বে প্রধাণত তিন ধরনের লবস্টার প্রজাতি পাওয়া যায়। এরা হলো-

Clawed lobster Spiny lobster Sand lobster

বাংলাদেশের সামুদ্রিক জলাশয়ে মোট কতটি প্রজাতির লবস্টার পাওয়া যায় তা নিয়ে বিভিন্ন গবেষক ভিন্ন ভিন্ন তথ্য উপস্থাপন করেছেন। Paul (2001) এর মতে বঙ্গোপসাগরে ৪টি …বিস্তারিত

ক্যাটাগরি: বিদেশী মাছ | মাছ | মাৎস্য সম্পদ

বাংলাদেশের বিদেশী মাছ: ফ্যান্টম টেট্রা

Phantom tetra: Hyphessobrycon megalopterus

ফ্যান্টম টেট্রা মাছের ঝাঁক

ফ্যান্টম টেট্রা মাছটি ব্ল্যাক ফ্যান্টম টেট্রা নামেও পরিচিত। মাছটির বৈজ্ঞানীক নাম Hyphessobrycon megalopterus । ফ্যান্টম টেট্রা মাছটি থাইল্যাণ্ড ও সিঙ্গাপুর হতে একুরিয়াম মাছ আমদানীকারকদের মাধ্যমে বাংলাদেশে প্রবেশ করে (Galib and Mohsin, 2010 and 2011)। এদের আদি নিবাস দক্ষিণ আমেরিকা (Wikipedia, 2010; Galib and Mohsin, 2011)।

শ্রেণীবিন্যাসগত অবস্থান Phylum: Chordata Class: Actinopterygii (Ray-finned fishes) Order: Characiformes (Characins) Family: Characidae (Characins) Genus: Hyphessobrycon Species: H. megalopterus

সিনোনেম Megalamphodus megalopterus Eigenmann, 1915 Megalamphodus rogoaguae Pearson, 1924.

দেহবর্ণনা: প্রায় চারকোনাকৃতি দেহবিশিষ্ট এই …বিস্তারিত

ক্যাটাগরি: বিদেশী মাছ | মাছ | মাৎস্য সম্পদ

বাংলাদেশের বিদেশী মাছ: ব্ল্যাক কার্প/স্নেইল কার্প

Black carp: Mylopharyngodon piceus

ব্ল্যাক কাপ / স্নেইল কার্প

ব্ল্যাক কার্প মাছটি ১৯৮৩ সালে চীন হতে মৎস্য অধিদপ্তরের মাধ্যমে বাংলাদেশে আনা হয় (Rahman, 2007; Khaleque, 2002; Galib and Mohsin, 2011)। এর বৈজ্ঞানিক নাম Mylopharyngodon piceus । এটি স্নেইল কার্প নামেও পরিচিত (Galib and Mohsin, 2011)। বাংলাদেশে এই মাছটি মূলতঃ শামুক নিয়ন্ত্রণ এবং চাষের উদ্দেশ্যে আমদানী করা হয়েছিল (Rahman, 2007; Khaleque, 2002; Galib and Mohsin, 2011)। ব্ল্যাক কার্প মাছের আদি নিবাস চীন (Khaleque, 2002)।

শ্রেণীবিন্যাসগত অবস্থান Phylum: Chordata Class: Actinopterygii (Ray-finned fishes) Order: Cypriniformes (Carps) Family: Cyprinidae …বিস্তারিত

ক্যাটাগরি: ফ্রাই ও ব্রুড মাছ | মাৎস্য চাষ | মাৎস্য বাণিজ্য | হ্যাচারি

মৎস্যচাষের জন্য ব্যতিক্রমধর্মী কিছু মাছের পোনা

যশোরের চাঁচড়া এলাকায় রাস্তার পাশে মাছের পোনা বিক্রয়ের দৃশ্য

যশোরের চাঁচড়া এলাকায় রাস্তার পাশে মাছের পোনা বিক্রয়ের দৃশ্য

আমাদের দেশে সে সকল মাছের চাষ করা হয় তার বেশীরভাগই রুই জাতীয় মাছ। এসকল মাছের মধ্যে রয়েছে মেজর কার্প (রুই, কাতলা, মৃগেল ও কালবাউস) ও চাইনিজ কার্প (সিলভার কার্প, বিগহেড কার্প, কমন কার্প ও গ্রাস কার্প)। এসব মাছ ব্যাতীত বেশ কিছু মাছের চাষও আমাদের দেশে হয়ে থাকে যেমন, মাগুর, শিং, থাই পাঙ্গাস ইত্যাদি।

যশোরের চাঁচড়া এলাকা মাছের …বিস্তারিত

ক্যাটাগরি: নানাবিধ

যশোরে স্থানীয়ভাবে টিউবিফেক্স সংগ্রহ ও বিক্রয়

Collected Tubifex

সংগ্রহকৃত টিউবিফেক্স

যশোর জেলার সদর উপজেলার চাঁচড়া এলাকায় মাছের জীবন্ত খাবার টিউবিফেক্স স্থানীয়ভাবে সংগ্রহ ও বিক্রয় করা হচ্ছে। চাঁচড়া এলাকায় রয়েছে বেশ কিছু হ্যাচারী, প্রচুর সংখ্যক পুকুর এবং বেশ কিছু ড্রেন। টিউবিফেক্স সংগ্রহ করা হচ্ছে এসকল ড্রেন হতে! যিনি এই সংগ্রহের কাজটি করছেন তিনি হলেন নূর আলম। তিনি ও তার পরিবারের অন্যান্য সদস্যরা তাকে একাজে সহায়তা করে থাকে।

সংগ্রহ পদ্ধতি: জীবন্ত টিউবিফেক্স সংগ্রহের জন্য ছোট আকারের খুব সুক্ষ্ম মেশের জাল/নেট ব্যবহার করা হয়। জালের আকার ছোট হওয়ায় ড্রেনে তা সহজেই পরিচালনা করা সম্ভব …বিস্তারিত